ঘাটাল মহকুমার দাসপুরের এক প্রাথমিক বিদ্যালেয়ের ছাত্রছাত্রীরা একেবারে গনতান্ত্রিক পদ্ধতিতে ব্যালট পেপারে ভোট দান করল। আজ সকাল সাড়ে দশটা থেকে নাড়াজোল ১ চক্রের পাঁচবেড়িয়া ইন্দুভূষণ মিশ্র স্মৃতি শিক্ষা মন্দির প্রাঙ্গনে দেখা যায় কচিকাঁচা খুদে ভোটারদের লাইন।

ওই বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক দিলীপ মাইতি জানান,সালটা ২০১২, রাজ্যের প্রাথমিক শিক্ষা সংসদ থেকে বলা হয়েছিল প্রতি শিক্ষা বর্ষে বিদ্যালয়ের ছাত্রছাত্রীদের নিয়ে একটি মন্ত্রীসভা গঠন করতে হবে। আর এই মন্ত্রীসভা তৈরি হবে বিদ্যালয়ের ছাত্রছাত্রীদের ভোটাভোটির মাধ্যমেই। এই মন্ত্রীরা বিদ্যালয়ের নানা কাজের দায়িত্ব প্রত্যক্ষ বা পরক্ষভাবে পালন করবে।

সারা রাজ্যজুড়েই প্রাথমিক বিদ্যালয়গুলিতে এই শিশু সংসদ গঠন হয়,তবে ক্লাস রুমের মধ্যেই ছাত্রছাত্রীদের ধ্বনি ভোটে।

প্রধান শিক্ষক দিলীপ বাবু আরও বলেন,আমরা বিদ্যালয়ের ছাত্রছাত্রীদের মধ্যে নির্বাচনী প্রক্রিয়ার পদ্ধতিগুলি বুঝিয়ে দিতে এবার শিশু সংসদ গঠনে ব্যালট ছাপিয়ে ভোটাভুটি করেছি।

আজ বিদ্যালয়ের পক্ষে রীতিমত ব্যালট পেপার ছাপিয়ে,তাতে প্রার্থীদের নাম প্রতীক লাগিয়ে পিসাইটিং অফিসার সহ পোলিং অফিসারসদের মাধ্যমে ভোট কক্ষে সবার অলক্ষ্যে ব্যালটে ছাপ দিয়ে ছাত্রছাত্রীরা তাদের পছন্দের প্রার্থীদের ভোট দেয়।
আর এই নির্বাচন প্রক্রিয়ায় পিসাইটিং থেকে পোলিং সমস্ত অফিসারের ভূমিকায় ছিল বিদ্যালয়েরই ছাত্রছাত্রীরা।

দুপুর দেড়টা পর্যন্ত চলে ভোটদান পর্ব। মোট ১৮৪ জন আজ ৭ মন্ত্রীর সমর্থনে নিজেদের মতামত ব্যালট পেপারের মাধ্যমে জানায়।

বিভিন্ন নির্বাচনে এতদিন কচিকাঁচারা তাদের মায়ের আঁচল ধরে মা বাবার সাথে ভোট কেন্দ্রে যেত। আজ সেই কচিকাঁচাদের হাত ধরে বিদ্যালয়ে এলেন তাদের মায়েরা।

মায়েরা লাইনের বাইরে আর তাদের ছেলেমেয়েরা তাদের বিদ্যালয় থেকে দেওয়া পরিচয়পত্র দেখিয়ে লাইন দিয়ে ভোট কক্ষে প্রবেশ করে ভোটার স্লিপ নিয়ে সই করে পোলিং অফিসারদের কাছ থেকে ব্যালট নিয়ে ভোটদান করল। আর ভোট কেন্দ্রের মধ্যেকার এই পক্রিয়া মায়েরা কেন্দ্রের বাইরে দাঁড়িয়ে দেখল।

বিদ্যালয়ের পক্ষে জানানো হয়েছে আজকের এই শিশু সংসদ নির্বাচনে অবজারভার হিসেবে ছিলেন পাঁচবেড়িয়া গ্রাম পঞ্চায়েতের উপ প্রধান সুকুমার জানা,প্রাক্তন প্রধান সদানন্দ সামন্ত,এস আই অফিসের পক্ষে পার্থ প্রতীম বেরা প্রমুখ।
ভোট পর্বশেষে ব্যালট বাক্স সবার সামনে সিল করে স্ট্রংরুম বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষকের আলমারির মধ্যে চলে যায়।

বিদ্যালয়ের পক্ষে জানানো হয়েছে আগামী ২১ সে ফেব্রুয়ারি হবে গননা। যে প্রার্থী সবেথেকে বেশি ভোট পাবে সেই হবে শিশু সংসদের এবারের প্রধান মন্ত্রী। বাকি ৬ প্রার্থী যথাক্রমে শিক্ষা মন্ত্রী,স্বাস্থ্য মন্ত্রী,খাদ্য মন্ত্রী,সাংস্কৃতিক মন্ত্রী,ক্রীড়া মন্ত্রী এবং পরিবেশ মন্ত্রীর পদে ওইদিন তাদের সপথ বাক্য পাঠ করানো হবে।

ঘাটাল মহকুমা তথা পশ্চিম মেদিনীপুর জেলায় এই প্রথম কোনো প্রাথমিক বিদ্যালয়ে প্রায় সব নির্বাচনী বিধি মেনে শিশু সংদের নির্বাচন হল।

বিদ্যালয়ের এই উদ্যোগকে স্বাগত জানিয়েছেন এলাকাবাসী। পাঁচবেড়িয়া গ্রাম পঞ্চায়েতের উপ প্রধানও বিদ্যালয়ের শিক্ষক শিক্ষিকাদের এই উদ্যোগে আপ্লুত। তিনি বলেন এই নির্বাচনের মাধ্যমে শিক্ষার্থীরা এক দিকে যেমন দেশের নির্বাচন প্রক্রিয়া সম্বন্ধে সচেতন হবে অন্যদিকে শিক্ষার্থীরা তাদের দায়িত্ব সম্বন্ধে সচেতন হবে, উপলব্ধি করবে মন্ত্রী পদে কাজ করার গুরুত্ব।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here